মধ্যরাতে আচমকাই ঐন্দ্রিলা শর্মার মৃ’ত্যুর গুজবে তোলপাড় নেটপাড়া, এখন কেমন আছেন অভিনেত্রী?

বিগত ১৫ দিন ধরে হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে লড়ছেন তিনি। বুধবার সকালে আচমকাই একাধিকবার হৃদরোগে আক্রান্ত হন বছর ২৪-এর অভিনেত্রী। হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছিল, ‘সিপিআর’ দেওয়া হয়েছে তাঁকে। এরপর বেশ কয়েক ঘণ্টা কেটে যাওয়ার পর এই মুহূর্তে কেমন আছেন অভিনেত্রী? সূত্র মারফৎ জানা যাচ্ছে, সিপিআর দেওয়ার পর অবস্থা কিছুটা সামাল দিতে পারেন চিকিৎসকেরা। সেই সময়ের মতো ধাতস্থ হয়েছিলেন ঐন্দ্রিলা। সঙ্কট এখনও কাটেনি তাই তাঁর বর্তমান পরিস্থিতি নিয়েও চিন্তা রয়েই যাচ্ছে। ওর মধ্যেই বুধবার মধ্যরাতে আচমকাই অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মার শারীরিক অবস্থা নিয়ে গুজব ছড়িয়ে পড়ে। নেটদুনিয়া জুড়ে রটে যায় অভিনেত্রীর মৃত্যুর খবর।

তথাকথিত সোশ্যাল মিডিয়া ইনফ্লুয়েন্সার থেকে শুরু করে একাধিক সেলব্রিটি ঐন্দ্রিলাকে নিয়ে মৃত্যু সংবাদ ছড়াতে থাকেন। ফেসবুক ওয়াল জুড়ে লেখা হতে থাকে, RIP! অনুরাগীদের মধ্যে তা নিয়ে বেশ শোরগোল পড়ে যায়। চোখের জল বাধ মানে না কারোরই। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জানা যায় সবটাই ভুল খবর। ঐন্দ্রিলা আছেন, লড়াইটা কঠিন হলেও হাল ছাড়েননি। তিনি লড়ছেন। ঐন্দ্রিলার মৃত্যুর এই ভুয়ো খবর এতটাই ছড়িয়ে পড়ে অভিনেত্রীর বন্ধু তথা ছায়াসঙ্গী সব্যসাচী চৌধুরীকেও শেষ পর্যন্ত ফেসবুকে এসে লিখতে হয়, ‍‍`আরেকটু থাকতে দাও ওকে.. এসব লেখার অনেক সময় পাবে।‍‍` আর তা দেখেই নিশ্চিন্ত হয় অভিনেত্রীর অনুরাগীরা। তাঁর সুস্থতা কামনায় এদিন রাত জাগেন বহু মানুষ। তার মধ্যে রয়েছেন গায়িকা ইমন চক্রবর্তীও।

অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মার শারীরিক অবস্থা এখনও সঙ্কটজনক। হাসপাতাল সূত্রে খবর, নতুন করে কোনও উন্নতি বা অবনতি হয়নি। গতকালের পর আজও ঐন্দ্রিলার ভেন্টিলেটর নির্ভরতা একইরকম রয়েছে। মস্তিষ্কে নতুন করে রক্ত জমাট বাঁধা ও সংক্রমণ ঠেকাতে ওষুধ চলছে। চিকিৎসকরা সতর্ক রয়েছেন। গতকাল সকালে অভিনেত্রীর কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়। চিকিত্‍সকরা পরিস্থিতি সামাল দেন। গতরাতে খবর ছড়িয়েছিল অভিনেত্রীর মৃত্যুর। কিন্তু ভুল বুঝতে পেরেই যারা সেই খবর শেয়ার করেছিলেন তা তড়িঘড়ি ডিলিট করেন। এদিকে হাসপাতাল সূত্রে জানানো হয়েছে এখনো গভীর সংকটে রয়েছে ঐন্দ্রিলা। অভিনেত্রীকে রাখা হয়েছে ভেন্টিলেশন সাপোর্টে।

এদিকে, ঐন্দ্রিলার শারীরিক অবস্থা নিয়ে ভুয়ো খবর রটে যাওয়ায় নেটমাধ্যমে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অভিনেতা অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়। তিনি লিখেছেন, ‘সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের বেলা দেখেছিলাম, মারা যাবার দু’দিন আগেই ফেসবুক মেরে ফেলেছিল। ওরা মরে না। আসলে আমরাই মরে গেছি অনেকদিন আগে।’ ঐন্দ্রিলার সুস্থতা কামনায় প্রার্থনা করছে গোটা টলিউড। তার বন্ধু সব্যসাচী চৌধুরী নিজে লিখেছেন, সবাই অসুস্থতার জন্য প্রার্থনা করুন, মিরাকেলের জন্য প্রার্থনা করুন। শুধু টলিউড ইন্ডাস্ট্রি নয়। তার অনুগামী থেকে শুরু করে সকলেই চাইছেন খুব দ্রুত সুস্থ হয়ে আবার আগের মত স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসুক ঐন্দ্রিলা।