Post Office Scheme: প্রতিদিন ১৩৩ টাকা করে দিলে পেয়ে যাবেন ২,৮৩,৯৬৮ টাকা! পোস্ট অফিসের এই স্কিমের কথা জানলে যাবেন চমকে !!

Post Office Scheme: পোস্ট অফিস ভারতে বেতনভোগী মধ্যবিত্তদের জন্য একটি নির্ভরযোগ্য এবং বিশ্বস্ত বিকল্প হয়ে উঠেছে। যারা তাদের কষ্টার্জিত অর্থ নিরাপদ স্থানে বিনিয়োগ করতে চায়। এছাড়া, পোস্ট অফিস (Post Office Scheme) নিরাপদ হওয়ার সঙ্গে ভালো রিটার্নও দিয়ে থাকে। বস্তুত পোস্ট অফিস একাধিক ভালো বিনিয়োগের স্কিম অফার করে থাকে। আর এমনই একটি স্কিম হল রেকারিং ডিপোজিট বা আরডি।

এটি একটি এমন প্রকল্প (Post Office Scheme) যেখানে মাত্র ১০০ টাকা দিয়ে আপনি বিনিয়োগ শুরু করতে পারেন। এই বিনিয়োগে আপনি দুর্দান্ত রিটার্নও পাবেন। আগে রেকারিং ডিপোজিট এর উপরে ভারত সরকারের ডাক বিভাগ ৬.২% সুদ দিত। কিন্তু সম্প্রতি সেই সুদের হার বৃদ্ধি করে ৬.৫% করা হয়েছে। একজন বিনিয়োগকারী যে পরিমাণ টাকা রেকারিং ডিপোজিটে রাখবেন তা মেয়াদ পূর্তি পর্যন্ত একই থাকতে হবে। আর সেই হিসেবে সুদের হিসাব করা হবে।

মনে করুন একজন প্রতিমাসে রেকারিং ডিপোজিট একাউন্টে ২০০০ টাকা করে জমা করেন। অর্থাৎ প্রতিদিনের এই বিনিয়োগের পরিমাণটা প্রায় ৬৬ টাকার কাছাকাছি দাঁড়াচ্ছে। তাহলে এক বছরে বিনিয়োগের পরিমাণ হবে ২৪ হাজার টাকার কাছাকাছি। পাঁচ বছরের বিনিয়োগের পর মোট টাকার পরিমান হবে ১,২০,০০০ টাকা। এর সঙ্গে অতিরিক্ত সুদ হিসেবে যোগ হবে ২১৯৮৩ টাকা। ফলে মেয়াদ পূর্তিতে পাওয়া যাবে ১ লাখ ৪১ হাজার ৯৮৩ টাকা।

অন্যদিকে ধরা যাক কোন বিনিয়োগকারী প্রতিমাসে তিন হাজার টাকা করে জমা করছেন রেকারিং ডিপোজিট একাউন্টে। সেক্ষেত্রে মেয়াদ পূর্তিতে তিনি ২ লক্ষ ১২ হাজার ৯৭১ টাকা পেয়ে যাচ্ছেন। প্রতিমাসে যদি তিন হাজার টাকা করে বিনিয়োগ করা হয় তাহলে প্রতিদিনে তিনি ১০০ টাকা করে বিনিয়োগ করছেন। অর্থাৎ তিনি বছরে ৩৬ হাজার টাকা করে জমা করছেন।

পাঁচ বছরের মেয়াদে তিনি জমা করছেন ১ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা। এর সঙ্গে অতিরিক্ত সুদ হিসেবে তিনি পাচ্ছেন ৩২ হাজার ৯৭২ টাকা।আবার ধরা যাক, কোনও বিনিয়োগকারী মাসে ৩০০০ টাকা আরডি অ্যাকাউন্টে জমা করছেন। সেক্ষেত্রে মেয়াদপূর্তিতে তিনি পাবেন ২১২৯৭১ টাকা। প্রতি মাসে ৩০০০ টাকা রাখার অর্থ হচ্ছে দিনে ১০০ টাকা করে জমানো। ফলে বছরে জমবে ৩৬ হাজার টাকা। ৫ বছরের মেয়াদে তাহলে জমবে মোট ১৮০০০০ টাকা। এর সঙ্গে অতিরিক্ত সুদ হিসেবে যুক্ত হবে ৩২৯৭২ টাকা।

ধরা যাক, একজন বিনিয়োগকারী প্রতি মাসে রেকারিং অন্যদিকে আবার যদি কোন বিনিয়োগকারী প্রতিমাসে ৪ হাজার টাকা করে বিনিয়োগ করেন, অর্থাৎ প্রতিদিন ১৩৩ টাকা করে বিনিয়োগ করেন, তাহলে তিনি এক বছরে বিনিয়োগ করতে পারছেন ৪৮ হাজার টাকা। পাঁচ বছরের মেয়াদে ২ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করছেন তিনি। সেক্ষেত্রে মেয়াদ পূর্তিতে সুদের অংকটা দাঁড়াচ্ছে ৪৩৯৮৬ টাকা। অর্থাৎ সবমিলিয়ে মেয়াদ পূর্তির সময় প্রাপ্ত অর্থের পরিমাণটা হচ্ছে ২ লক্ষ ৮৩ হাজার ৯৬৮ টাকা।

Bollywood Actress: নাম, যশ, অর্থ থাকা সত্ত্বেও বলিউড ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন এই ৫ জনপ্রিয় নায়িকা !!

Leave a Comment