ঐন্দ্রিলার পায়ে চুম্বন করেই শেষ বিদায় জানালেন সব্যসাচী! দৃশ্য দেখে চোখে জল গোটা বাংলার

WhatsApp Channel Join Now
Telegram Channel Subscribe

“এই প্রেমহীন সময়ে বলছি তোমায় ভালবাসি”–এই ব্যস্ত শহরের ব্যস্ত মানুষজনের কাছে যখন প্রিয়জনের জন্য সময় নেই, যখন ভালোবাসায় মিশে যাচ্ছে কৃত্রিমতা। সেখানে দাঁড়িয়ে একটা ছেলে প্রেমিকাকে ভালোবেসে পাশে থেকে গেল শেষ নিঃশ্বাসের আগে পর্যন্ত। এমনকি পরেও। হ্যাঁ, এই কাহিনী ঐন্দ্রিলা শর্মা (Aindrila Sharma) আর সব্যসাচী চৌধুরীর (Sabyasachi Choudhury)। যাঁরা সবাইকে শিখিয়ে দিল ভালোবাসা কাকে, শেখালো ভালোবাসলে কিভাবে ভালোবাসার মানুষটার হাত ধরে থাকতে হয় শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত।

মাত্র ২৪ বছর বয়সেই মৃত্যু হল অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মার। আর সেই মৃত্যু চোখের সামনে দেখতে হল তাঁর আত্মীয়,পরিজন এবং কাছের মানুষদের। ২০ শে নভেম্বর, ২০ দিনের লড়াই শেষ করে ঐন্দ্রিলা ঢলে পরলো মৃত্যুর কোলে। ঐদিন দুপুর ১২.৫৯ মিনিটে হাওড়ার বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয় তাঁর। পরিবার, কাছের মানুষ থেকে শুরু করে তাঁর অনুরাগীরা, সকলেই আজ শোকস্তব্ধ তাঁর মৃত্যুতে।

তবে সব্যসাচী চৌধুরী আজ যেন একেবারে নিশ্চুপ হয়ে গেছেন। ওঁনার প্রোফাইলের পোস্ট থেকেই বিভিন্ন খবর পাওয়া যাচ্ছিল। কিন্তু হঠাৎ করে শনিবার রাতে প্রেমিকার সম্পর্কিত যাবতীয় স্বাস্থ্য সম্পর্কীত পোস্ট ডিলিট করে দিয়েছিলেন সব্যসাচী। তখনই নেটিজনদের মনে সন্দেহ হয়েছিল। কিন্তু মনকে সবাই স্বান্তনা দিচ্ছিলেন। কিন্তু আজ দুপুরেই পাওয়া যায় সেই খারাপ খবর।

ঐন্দ্রিলা শর্মার শেষ যাত্রায় সঙ্গে ছিলেন তাঁর বাবা উত্তম শর্মা, তাঁর মা, তাঁর দিদি, পরিবারের আরও কয়েকজন এবং তাঁর প্রেমিক সব্যসাচী চৌধুরী। তাঁর বাবা এবং প্রেমিক একসাথে মুখাগ্নি করলেন ঐন্দ্রিলার। কিন্তু একটি ভিডিওতে দেখা গেছে মৃত্যুর আগে সব্যসাচী তাঁর প্রেমিকার পায়ে মাথা ঠেকিয়েছেন, এমনকি প্রেমিকার পায়ে চুম্বন পর্যন্ত করেন। বেশ কিছুক্ষণ পা ধরে মাথা নিচু করেছিলেন সব্যসাচী। এতেই বোঝা যায় সব্যসাচী কতোটা ভালোবাসতেন, কতোটা সম্মান করতেন তাঁর প্রেমিকাকে। এইভাবেই ভালোবাসাগুলো জিতে যাক বারবার।