স্যাড সিন করতে গিয়ে ইমোশনাল হয়ে হাউ হাউ করে কাঁদতে থাকেন সিদ্ধার্থ! পর্দার উচ্ছে বাবুর বিশেষ দিককে সামনে আনলেন উচ্ছে বাবুর পর্দার দাদাই

ধারাবাহিক জগতের সবথেকে শীর্ষে রয়েছে মিঠাই ধারাবাহিক টি। এই ধারাবাহিকটির নায়ক চরিত্রে অভিনয় করছেন আদৃত। এই ধারাবাহিকে মোদক পরিবারের নাতি সিদ্ধার্থ। তিনি এর আগে অনেক সিনেমায় অভিনয় করেছেন। এটা তাঁর প্রথম ধারাবাহিক। তাঁর অভিনয় ভীষণ পছন্দের হয়ে উঠেছে দর্শকদের কাছে।

Bg Copy84, স্যাড সিন করতে গিয়ে ইমোশনাল হয়ে হাউ হাউ করে কাঁদতে থাকেন সিদ্ধার্থ! পর্দার উচ্ছে বাবুর বিশেষ দিককে সামনে আনলেন উচ্ছে বাবুর পর্দার দাদাই, স্যাড সিন করতে গিয়ে ইমোশনাল হয়ে হাউ হাউ করে কাঁদতে থাকেন সিদ্ধার্থ! পর্দার উচ্ছে বাবুর বিশেষ দিককে সামনে আনলেন উচ্ছে বাবুর পর্দার দাদাই

সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে উচ্ছে বাবু ও দাদাই কে একসঙ্গে দেখা গিয়েছে। সিদ্ধার্থের সব তথ্য ফাঁস করেছেন দাদাই। সেই সাক্ষাৎকার থেকে উঠে আসে শুটিং ফ্লোররের বেশ কিছু তথ্য। জানা গিয়েছে একটি ইমোশনাল সিন এ অভিনেতা কে সত্যি সত্যিই কাঁদতে দেখা গিয়েছে। ধরাবাহিকে প্রচুর ইমোশনাল সিন আসেও। সবটাই মানিয়ে অভিনেতা কে অভিনয় করতে হয়।

Bg Copy85, স্যাড সিন করতে গিয়ে ইমোশনাল হয়ে হাউ হাউ করে কাঁদতে থাকেন সিদ্ধার্থ! পর্দার উচ্ছে বাবুর বিশেষ দিককে সামনে আনলেন উচ্ছে বাবুর পর্দার দাদাই, স্যাড সিন করতে গিয়ে ইমোশনাল হয়ে হাউ হাউ করে কাঁদতে থাকেন সিদ্ধার্থ! পর্দার উচ্ছে বাবুর বিশেষ দিককে সামনে আনলেন উচ্ছে বাবুর পর্দার দাদাই

যারা অভিনয় ভালোবাসেন অথবা অভিনয় করতে করতে একেবারে পুরোপুরি ঢুকে যান তাঁরা সত্যিই কিছু সিন কে নিজের মতন করে নিয়ে নেন। একেবারে অভিনয় এর মধ্যে ঢুকে যান তারা কিছুক্ষন এর জন্যে। যেমন ইমোশনাল সিন গুলোতে অভিনেতা রা একেবারেই সিন এ ঢুকে পড়েন। কেঁদেও দেন কিছু সিনে। এমনটাই ঘটেছিল উচ্ছেবাবুর সাথে।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by mithai prem (@mithailoves)

জানা গিয়েছে ধারাবাহিক এ এমন একটি সিন ছিল যেখানে দাদাই অসুস্থ হয়ে পড়বে আর সেই সিন করতে আদৃত কে ইমোশনাল হতে হবে। এবং এটি করতে গিয়েই তিনি একটু বেশি ই ইমোশনাল হয়ে পড়েছিলেন। আসলে তখন তাঁর নিজের দাদুর কথা মনে পড়ে গেছিল। অনস্ক্রিন অভিনেতা দাদাই বলেন, ” এই ইমোশনাল হওয়া টা কিন্তু অর লুস পয়েন্ট নয় এটাই ওর ক্যাপিটাল। ও যে পরিবারের সাথে ভীষণভাবে যুক্ত সেটা বোঝা যায় এই থেকে।”

Leave a Comment